১ জুন চিটাগং শর্ট চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৯-এর ফিল্ম জমাদান শুরু

আগামী ১লা জুন ২০১৮ প্রথম প্রহর থেকে শুরু হচ্ছে চিটাগং শর্ট চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৯ এর চলচ্চিত্র জমাদান পর্ব। ৪র্থ বর্ষের এ আয়োজনে শর্টফিল্ম Submission বা জমাদান প্রতিবারের মতই ৩টি পর্বে বিন্যস্ত। ১ থেকে ৩০শে জুন ২০১৮ পুরো একমাস থাকবে Early Bird পর্ব। এ পর্বে জমাদান ফি সবচাইতে কম— মাত্র ৮০০ টাকা। ইন্ডি-ফিল্মমেকারদের জন্য যা অত্যন্ত উপযোগী ও সাশ্রয়ী। ১লা জুলাই থেকে ১৫ই সেপ্টেম্বর ২০১৮ পুরো আড়াই মাসের লম্বা সময় বরাদ্দ রাখা হয়েছে নিয়মিত বা Regular পর্বের জন্য। নিয়মিত পর্বের ফি ১২০০ টাকা। হাতে সময় নিয়ে যাঁরা চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে চান তাঁদের জন্য এটা সুবর্ণ সুযোগ। ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে ৩১শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ মধ্যরাত পর্যন্ত ফিল্ম জমাদানের শেষ সুযোগ সেইসব ফিল্মমেকারদের জন্য যাঁরা চান আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে তাঁর শর্টফিল্মটি প্রতিযোগিতা ও প্রদর্শনীতে নামুক— যদিও তা শেষ সময়ে জমা দেয়া হয়। Extended পর্বে জমাদান ফি ১৬০০ টাকা।

IMG_0393এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে চিটাগং শর্ট চলচ্চিত্র উৎসবের ফেস্টিভাল ডিরেক্টর শারাফাত আলী শওকত বলেন, “দেখুন, যেহেতু আমরাও চলচ্চিত্র নির্মাণে ওতোপ্রোতভাবে জড়িত— ফিল্মমেকার, আমরা জানি ফিল্মমেকারদের কষ্টের জায়গাটা ঠিক কোথায়? তাঁদের একটাই দু:খ— তাঁদের এ নির্মাণ দর্শক কীভাবে গ্রহণ করছে তা দেখতে পারেন না, উপলব্ধির সুযোগ নেই। এ কারণেই আমরা চলচ্চিত্রকারদের জন্য প্ল্যাটফর্ম তৈরির অংশ হিসেবে এ উৎসবের আয়োজন করছি। উৎসবের সাবমিশন ফি দিয়ে পুরস্কারের টাকাটাও ওঠে না। তারপরও আমরা তরুণ নির্মাতাদের হাতের নাগালে ফি রাখার চেষ্টা করেছি। আমাদের নিদারূণ কষ্ট হচ্ছে, তারপরও লেগে আছি— জানি, একদিন নির্মাতারা তাঁদের কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবেন। এ এক কঠিন যাত্রা— কবিগুরুর ভাষায় ‘সত্য যে কঠিন, কঠিনেরে ভালোবাসিলাম।’ জানি, ‘আমরা করবো জয় একদিন।

3rd Volunteers' Meeting_2উৎসবে চলচ্চিত্র জমাদানের জন্য নির্মাতাগণ বিভিন্ন উপায় বা পদ্ধতি গ্রহণ করতে পারবেন বলে জানান উৎসবটির মিডিয়া উইংয়ের প্রধান আশরাফ আবির। www.csffbd.nokshaworld.com এই ওয়েবসাইটে সাবমিশনের বিস্তারিত নিয়মাবলী পাওয়া যাবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, “চিটাগং শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের সাবমিশন পার্টনার হিসাবে আছে জনপ্রিয় অনলাইন ফেস্টিভ্যাল মিডিয়া filmfreeway.com, withoutabox.com, festhome.com, iamafilm.com প্রভৃতি ওয়েবপোর্টাল। এসব ওয়েবসাইট csffbd নামে সার্চ করলেই পাওয়া যাবে ফিল্ম জমাদানের খুঁটিনাটি বিষয়াদি। তাছাড়া, সরাসরি ‘নকশা’ কার্য্যালয়ে এসেও আগ্রহী নির্মাতাগণ তাঁদের মূল্যবান শর্টফিল্মটি জমা দিতে পারবেন।”

16উল্লেখ্য, স্বাধীন বাংলাদেশের সর্বপ্রথম সংবাদপত্র ‘দৈনিক আজাদী’র প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় বিজ্ঞাপনী সংস্থা ‘নকশা’র সামাজিক দায়বদ্ধতা প্রকল্প (CSR Project) হিসেবে ২০১৫ সালের ২৫শে মে যাত্রা শুরু করা তরুণ চলচ্চিত্রকারদের সংগঠন ‘চিটাগং শর্ট’ ২০১৬ সাল থেকে প্রতিবছর জানুয়ারি মাসে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র উৎসব আয়োজন করে আসছে। ২০১৬ সালের প্রথম আয়োজনে ১০টি চলচ্চিত্র জমা পড়ে এবং নাসের আহমেদের শর্টফিল্ম ‘খুন্নাস’ শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র হিসাবে পুরস্কার লাভ করে।

IMG_4603111২০১৭ সালের দ্বিতীয় আয়োজন দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে বৈশ্বিক রূপ লাভ করে। জমা পড়ে ২৫টি দেশের ৮৩টি শর্টফিল্ম। অংশগ্রহনকারীর সংখ্যা আশাতীত বৃদ্ধি পাওয়ায় আয়োজক প্রতিষ্ঠান পুরস্কারের সংখ্যা ১টি থেকে বাড়িয়ে ৫টি করতে বাধ্য হয়। এ বছর শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র হিসাবে পুরস্কার পায় আসিফ খানের ‘পোস্টার’, বিদেশী ভাষার শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র ভারতের ধীরাজ জিনদালের শর্টফিল্ম ‘দ্য স্কুল ব্যাগ’, শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রকার হিসাবে পুরস্কার লাভ করেন ‘PATH’ চলচ্চিত্রের পরিচালক আবিদ মল্লিক, শ্রেষ্ঠ অভিনেতা ‘পোস্টার’-এর ইহতিশাম আহমেদ টিংকু, শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কারে ভূষিত হন ‘পাথ’-এর প্রিয়াংকা বোস কান্তা।

IMG_0981_DSC7946তৃতীয় আয়োজনে ২০১৮ সালের চিটাগং শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভাল-এ অংশ নেন ২৭টি দেশের ৮৯টি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র— যাদের প্রতিটির ব্যাপ্তি ৩০ মিনিটের মধ্য সীমাবদ্ধ। ২০টি চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর জন্য নির্বাচন করা হয়। ৮৯টি চলচ্চিত্রের মধ্যে মাত্র ২০টি চলচ্চিত্র কেন প্রদর্শনীর জন্য নির্বাচন করলেন এমন প্রশ্নের জবাবে চিটাগং শর্ট চলচ্চিত্র উৎসবের ইভেন্ট ডিরেক্টর অচ্যুত কুমার মিত্র যীশু জানান, “আমাদের সামর্থ্য সীমিত। আমাদের ইচ্ছে থাকার পর একদিনের বেশি প্রদর্শনী আয়োজনের সুযোগ ও সামর্থ্য নেই। একদিনের আয়োজনে বিগত বছর ১৫টি চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর জন্য বাছাই করা হলেও এ বছর আমরা ২০টি শর্টফিল্ম সিলেক্ট করেছি। আগামী বছর যদি আমাদের সুযোগ বাড়ে, পর্যাপ্ত সহযোগিতা পাই তাহলে প্রদর্শনীতে ছবিসংখ্যা আরো বাড়ানোর ইচ্ছা পোষণ করি। আমরা সবার আশীর্বাদ, শুভ কামনা ও আন্তরিক সহযোগিতা আশা করছি।” চিটাগং শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল ২০১৮-তে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র নির্বাচিত হয়েছে এনামুল হক খান পরিচালিত এবং ফুয়াদ নাসের প্রযোজিত শর্টফিল্ম ‘বাঁকা হাওয়া।  শ্রেষ্ঠ বিদেশী ভাষার চলচ্চিত্র হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে ফ্যাব্রিস বারাখ পরিচালিত এবং ফেব্রিস প্রিয়েল ক্লিস প্রযোজিত ‘এ হোল ওয়ার্ল্ড ফর এ লিটল ওয়ার্ল্ড’। এছাড়াও নাহিদা পারভিন (কন্টেমপ্লেশন) শ্রেষ্ঠ পরিচালক, ফাহিম আরিয়ান (কাম ফ্রম বিদেশ) শ্রেষ্ঠ অভিনেতা এবং উনি প্রু মারমা (লেটার টু গড) শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরষ্কার পান।

IMG_2092চিটাগং শর্ট চলচ্চিত্র উৎসবটির জুরি বোর্ডে আছেন প্রতিথযশা নির্মাতা সৈয়দ আলী হায়দার রিজভি (Haider Rizvi), চিত্রনাট্যকার ও নির্মাতা শাহজাহান শামীম (Shahjahan Shamim), তরুণ মেধাবী নির্মাতা সোহেল রহমান (Sohel Rahman) এবং প্রবীন নির্মাতা জ্যাঁ-নেসার ওসমান (Osman Turhan) জুরি বোর্ডের চেয়ারম্যান। দৈনিক আজাদী’র পরিচালনা সম্পাদক ওয়াহিদ মালেকের পৃষ্ঠপোষকতায় আঠার সদস্যের উৎসব পরিচালনা বোর্ডের প্রেসিডেন্ট হিসাবে আছেন নকশা’র সিইও এবং চিটাগং শর্টের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী।

IMG_4461৩১শে অক্টোবর ২০১৮ প্রকাশিত হবে চিটাগং শর্ট চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৯-এ প্রদর্শনীর জন্য নির্বাচিত স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের নামের তালিকা। ২০১৯ সালের জানুয়ারী মাসে অনুষ্ঠিত হবে প্রদর্শনী, মাস্টারক্লাশ ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান। নভেম্বর-ডিসেম্বর এ দুইমাস বিদেশী নির্মাতাগণ উৎসবে অংশগ্রহণের জন্য প্রয়োজনীয় অনুমতি ও ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবেন বলে জানান উৎসব পরিচালক শারাফাত আলী শওকত।

লেখা: আই ডেস্ক

ছবি: জিকু বড়ুয়া, শাহাদাত হোসাইন জনি, সুম্ময় দাস, আরমান চৌধুরী