প্রকৃতির শত বৈরিতায়ও বন্ধ থাকেনি ‘মৌনতা এঁকে যাবে’র শ্যুটিং

40EFEE3A-E9E7-4B14-8A12-4932D081E558

‘বৈরী সময় আনে, কত বিরহ ব্যথা

মৌনতা এঁকে যাবে, প্রেমে বিষাদের রেখা।’

গানের কথাতেই বৈরী সময়ের কথা উল্লেখ ছিল। কিন্তু সেই বৈরী সময় যে শ্যুটিং ইউনিটেও তাড়া করে ফিরবে সে কথা কস্মিনকালেও চিন্তা করেননি ‘পোড়ামন ২’ খ্যাত পরিচালক রায়হান রাফী। তবে প্রকৃতির শত বৈরিতা সত্ত্বেও কোনকিছুই দমাতে পারেনি তাঁকেসহ পুরো ‘মৌনতা এঁকে যাবে’ টিমকে। ঘুর্ণিঝড় ‘তিতলি’র ৩ নম্বর সতর্কতা সংকেত মাথায় নিয়ে, টানা দু’দিনের প্রবল বর্ষণকে সংগী করে শ্যুটিং সম্পন্ন হলো চিটাগং শর্ট’ পরিবেশিত ও নকশা প্রযোজিত সাদেকা বেগম আশরারের কথা, শাহবাজ খান পিলুর সুর, গোলাম রাব্বি সোহাগের সঙ্গীতায়োজন ও ফাহমিদা নবীর কণ্ঠে গাওয়া গান ‘মৌনতা এঁকে যাবে’র মিউজিক ভিডিওর।

81FA75C1-2813-4879-9C79-2C414915CFD2.jpeg

একে তো বৃষ্টি তার উপর মৌসুমী ঠান্ডা। বৃষ্টিটাও একটানা পড়ছে বিশ্রীভাবে। কিছুটা কমে এলে, এই বৃষ্টিতে হাঁটা যায় ঠিকই, কিন্তু ক্যামেরা তো আর বের করা যায় না! অবস্থা আগে থেকে বুঝতে তাই একদিন আগেই শ্যুটিং লোকেশন কক্সবাজারে পৌঁছে যাওয়া। কিন্তু লাভ হলো কই! বৃষ্টি টানা ২দিন ধরে পড়ছে, আগামী আর ৩/৪ দিনও পড়বে। আবহাওয়ার পূর্বাভাস দেখে মাসখানেক আগে থেকেই টিকেট কাটা, হোটেল বুকিং দেয়া সব শেষ। এদিকে ফাহমিদা নবীও চলে আসছেন পরদিন, পুরো প্রোডাকশন টিমও সবকিছু নিয়ে প্রস্তুত। এমন অবস্থায় প্রোডাকশন পিছিয়ে দেওয়া মানে অনেক টাকার ক্ষতি। প্রযোজক ইসমাইল চৌধুরীকে অভয় দিলেন রায়হান রাফী, “টেনশান নিয়েন না ভাই। হয়ে যাবে”। প্রোডাকশন শুরু হলো। নির্দিষ্ট সময়ের কিছু পরেই অবশ্য ক্যামেরা ওপেন করা হলো। কিছু দৃশ্য ইনডোরেই শেষ হলো, আউটডোরে বৃষ্টিতেও হলো কিছু। কিন্তু মনমতো হলো না। অগত্যা একদিন বাড়ানো হলো সময়।

8636C7A8-1645-43FD-9040-61D5B3412F86.jpeg

প্রথমদিন তো কাজ তেমন হয়নি। নাহ, আর ছাড় দেওয়া যায় না। পুরো বৃষ্টিতেই হবে শ্যুটিং। রাফীর উদ্যম ভর করলো পুরো টীমের উপর। ফাহমিদা নবী গত ক’দিন ধরে ঠান্ডা জ্বরে ভুগছিলেন। টীমের পাগলামো ভর করলো তাঁর উপরও। ঝাড়া বৃষ্টিতে নেমে গেলেন টেক দিতে। পরদিন, পুরোটা দিন বৃষ্টিতে ভিজে শীতে কাঁপতে কাঁপতে হীরা ও অমি খানকে নিয়ে চলল শ্যুটিং। উল্লেখ্য, নবাগত হীরা ও অমি খান মিউজিক ভিডিওর মূল ২টি চরিত্রে আছেন। শেষ দিন একদম শেষ সময়ে বৃষ্টি বাবাজি বোধহয় বুঝতে পারলেন এদের হারানো যাবে না, তিনি ক্ষান্ত দিলেন। ঘন্টা পাঁচেকের জন্যে বৃষ্টিটা বন্ধ ছিল। তাতে চলল শেষ সময়ের কিছু দৃশ্যধারণ।

5F926E17-AAA7-4C5D-830C-DC5D37AA6329

শ্যুটিং শেষে রাফী বলেন, “নতুন এক অভিজ্ঞতা হলো। বৃষ্টিতে আগেও শ্যুটিং করেছি, কিন্তু এতটা বৃষ্টিতে কখনোই না। কোন কাজে বাধা পেলে আমার বরাবরই জেদ চেপে যায়, একটা জেদ কাজ করছিল যে, শেষ করতেই হবে। আর দিনশেষে সবাই কাজটাই দেখবে। আমিতো আর মিউজিক ভিডিও বানিয়ে নিচে স্ক্রল লিখে দিতে পারিনা যে, “বৃষ্টির কারণে শ্যুটিং ভালোমত করতে পারিনি”। তাই একপ্রকার বলতে গেলে ঝাঁপিয়েই পড়েছি। পুরো টিমকে ধন্যবাদ যথাসময়ে সাপোর্ট দেওয়ার জন্যে। আমার ইচ্ছাটা সবার মাঝে ছড়িয়ে যাওয়ার ফলেই ঠিকভাবে কাজটা শেষ করা সম্ভব হলো।” প্রোডাকশনের প্রধান চিত্রগ্রাহক শরাফাত আলী শওকত অবশ্য জানালেন তিনি একদমই দুশ্চিন্তায় ছিলেন না। তাঁর ভাষায়, “আমার কাছে শ্যুটিংয়ের সময়টা মানে হলো বাজার করা। আমি কি কি বাজার করছি তার উপরই মূল কাজটা নির্ভর করবে। আমি যদি বাজারই ঠিকঠাক না করি, তাহলে রান্না মানে এডিটিংয়ে গিয়ে আর কি-ই বা করা যাবে। হ্যাঁ, কিছুটা ভয় যে কাজ করছিল না, তা না! তবে আত্মবিশ্বাস ছিল যে, রান্না করার মতো যথেষ্ট বাজার পরিচালক রাফীকে বুঝিয়ে দিতে পারবো।”

B849B4F3-6737-4737-B942-5EE29E44A135

উল্লেখ্য, নকশা প্রযোজিত ও চিটাগং শর্ট পরিবেশিত এই মিউজিক ভিডিওটি চলতি বছরের নভেম্বর নাগাদ নকশা’র ইউটিউব চ্যানেলে মুক্তি দেওয়া হবে বলে জানানো হয়।

Poster_Mounota-Enkey-Jabey